বরিশাল-চট্টগ্রাম-সিলেটে অতিভারী বর্ষণের পূর্বাভাস

0
5

গ্রীনসিটি ডেস্ক:

ভারী বর্ষণের মধ্যে বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগে অতিভারী বর্ষণের পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর। এ কারণে চট্টগ্রাম বিভাগের পাহাড়ী ভূমিধসের সম্ভাবনা রয়েছে।

গত দু’দিন থেকে রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি এলাকায় অতিভারী বর্ষণে পাহাড় ধসে হতাহতের ঘটনা ঘটেছে।

মঙ্গলবার (১২ জুন) সকালে আবহাওয়াবিদ এ কে এম রুহুল কুদ্দুছ জানান, প্রবল মৌসুমী বায়ুর কারণে উত্তর বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় গভীর সঞ্চালনশীল মেঘমালা সৃষ্টি অব্যাহত রয়েছে।

এর প্রভাবে সকাল ১১টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের কোথাও কোথাও দমকা/ঝড়ো হাওয়াসহ ভারী (৪৪-৮৮ মিলি) থেকে অতিভারী (৮৯ মিলি) বর্ষণ হতে পারে।

‘অতিভারী বর্ষণের কারণে চট্টগ্রাম বিভাগের পাহাড়ী এলাকার কোথাও কোথাও ভূমিধসের সম্ভাবনা রয়েছে।’

গত ২৫ ঘণ্টায় রাঙামাটিতে ২৬৪ মিলি, সীতাকুণ্ডে ১৯৬ মিলি, সেন্টমার্টিনে ১৬১ মিলি, মাইজদী কোর্টে ১৩৬ মিলি, খুলনায় ১২৪ মিলি, বরিশালে ৪৫ মিলি ও সিলেটে ২৩ মিলি বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে।

সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের কুমিল্লা ও ভারতের ত্রিপুরা অঞ্চলে অবস্থানরত লঘুচাপটি গুরুত্বহীন হয়ে পড়েছে। মৌসুমী বায়ু উত্তর বঙ্গোপসাগরে প্রবল অবস্থায় রয়েছে এবং গভীর সঞ্চালনশীল মেঘমালার সৃষ্টি অব্যাহত রয়েছে। দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমী বায়ু চট্টগ্রাম, ঢাকা, সিলেট, ময়মনসিংহ, খুলনা ও বরিশাল বিভাগে বিস্তার লাভ করেছে।

খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম, সিলেট, ঢাকা ও ময়মনসিংহ বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় এবং রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় অস্থায়ী দমকা/ঝড়ো হাওয়া ও বিজলী চমকানোসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সে সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারী থেকে অতিভারী বর্ষণ হতে পারে।

তবে আগামী তিন দিনে বৃষ্টিপাতের প্রবণতা হ্রাস পেতে পারে। সারাদেশে দিন এবং রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে।

এদিকে, বাতাসে আর্দ্রতা বেশি থাকায় গরম অনুভূত হচ্ছে বেশি। সকাল ৬টায় ঢাকায় বাতাসের আপেক্ষিক আর্দ্রতা ছিল ৯২ শতাংশ।