রবিবার, ফেব্রুয়ারি ৫, ২০২৩
Homeরাজশাহী প্রতিদিনকান্নায় হিমেলকে বিদায় দিলেন সহপাঠীরা

কান্নায় হিমেলকে বিদায় দিলেন সহপাঠীরা

এরপর মাহমুদের মরদেহ জানাজার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদ প্রাঙ্গণে নেওয়া হয়। সেখানে মাহমুদের মামা মো. মুন্না সবার উদ্দেশে বলেন, ‘খুব অল্প বয়সে হিমেল আমাদের মাঝ থেকে চলে গেল। আমার বোন স্বামীহারা ছিলেন, এখন সন্তানহারা হলেন। তিনি এখন এটা কীভাবে মেনে নেবেন, আমি জানি না। আর কোনো মায়ের বুক যেন খালি না হয়। ভবিষ্যতে যেন আর কারও এ রকম না হয়, আশা করি স্যাররা সেটা দেখবেন।’

উপাচার্য গোলাম সাব্বির সাত্তার বলেন, ‘সন্তানহারা পিতা হিসেবে আমার পক্ষে এখন কিছু বলা সম্ভব নয়। সন্তানের লাশ পিতার কাঁধে যে কত দুঃসহ! তারই তো আমাকে কাঁধে নেওয়ার কথা ছিল। আমরা তার মায়ের সঙ্গে কথা বলেছি। তার মায়ের আর্থিক দিক আমরা দেখব। তার মা মুনিরা আক্তারের নামে ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খোলা হয়েছে। আহত রায়হানের দায়িত্বও নেওয়া হয়েছে।’

মাহমুদের মৃত্যুর ঘটনায় শিক্ষার্থীদের দাবির মুখে গতকাল মঙ্গলবার রাতে মৌখিকভাবে ভারপ্রাপ্ত প্রক্টরকে প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন উপাচার্য গোলাম সাব্বির সাত্তার। এ ঘটনায় গতকাল দিবাগত রাত দুইটা পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ করেন। পরে তাঁরা উপাচার্যের কাছে লিখিতভাবে ৭ দফা দাবি দিয়ে সকাল পর্যন্ত আন্দোলনে বিরতি ঘোষণা করেন। শিক্ষার্থীদের দাবির মধ্যে ছিল নিহত মাহমুদের পরিবারকে ১০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়া।

এ বিষয়ে উপাচার্য গোলাম সাব্বির সাত্তার বলেন, ‘আমি আমার সর্বোচ্চ ক্ষমতা অনুযায়ী বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে ৫ লাখ টাকার বেশি দিতে পারছি না। এরপর আমরা ফাইন্যান্স কমিটিতে বসব। শিক্ষকদের সঙ্গে বসে কথা বলব। আমি তো নিজে নিজে ১০ কোটি টাকা দেওয়ার ঘোষণা দিতে পারব না।’

বেলা পৌনে ১১টায় মাহমুদের জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজা শেষে বেলা ১১টায় তাঁর মরদেহ বিশ্ববিদ্যালয়ের লাশবাহী পিকআপ ভ্যানে করে তাঁর মায়ের বাড়ি নাটোরের কাপুড়িয়াপট্টির উদ্দেশে নেওয়া হয়। ভ্যানে তাঁর কয়েক সহপাঠীও ছিলেন। সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের গাড়িতে করে উপাচার্য গোলাম সাব্বির সাত্তার, সহ-উপাচার্য চৌধুরী মো. জাকারিয়া ও অধ্যাপক সুলতান-উল-ইসলাম, ছাত্র উপদেষ্টা মো. তারেক নূর, জনসংযোগ দপ্তরের প্রশাসক প্রদীপ কুমার পাণ্ডেসহ বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা নাটোর রওনা হন। বিশ্ববিদ্যালয়ের ৮টি বাসে করে শিক্ষার্থীরাও নাটোরের দিকে যাত্রা করেন।

একই দুর্ঘটনায় মাহমুদের সঙ্গে তাঁর বন্ধু মৃৎশিল্প ও ভাস্কর্য বিভাগের শিক্ষার্থী রায়হান প্রামাণিক আহত হয়েছিলেন। তিনি রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ৩১ নম্বর ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন। আজ সকালে বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক কনক কুমার পাঠক প্রথম আলোকে বলেন, ‘রায়হানের ডান পায়ের গোড়ালির কাছে সেলাই করা হয়েছে। সে শঙ্কামুক্ত বলে চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন।’

এরআগে মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ হবিবুর রহমান হলের সামনে ট্রাকচাপায় নিহত হন গ্রাফিক ডিজাইন, কারুশিল্প ও শিল্পকলার ইতিহাস বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র মাহমুদ হাবিব হিমেল। তিনি শহীদ শামসুজ্জোহা হলের আবাসিক ছাত্র। এছাড়া তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ড্রামা অ্যাসোসিয়েশনের (রুডা) সাধারণ সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় সাংস্কৃতিক জোটের দপ্তর সম্পাদক ছিলেন।

ওই দুর্ঘটনায় সিরামিক ও ভাস্কর্য বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র রায়হান প্রামাণিক আহত হন। তিনি রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের ৩১ নম্বর ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন আছেন।

প্রথম আলো

সর্বশেষ সংবাদ

No posts to display