বুধবার, ফেব্রুয়ারি ৮, ২০২৩
Homeগ্রীনসিটি স্পেশালবাংলাদেশ-ভারত সাংস্কৃতিক মিলনমেলার বেচা-কেনা ভালো হয়েছে

বাংলাদেশ-ভারত সাংস্কৃতিক মিলনমেলার বেচা-কেনা ভালো হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক:

রাজশাহী কলেজ মাঠে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ-ভারত ৫ম সাংস্কৃতিক মিলনমেলার শেষ দিনে স্টলগুলোতে ছিল ক্রেতা ও দর্শনার্থীদের ভিড়। ফলে কেনা-বেচা ভালো হয়েছে বলে জানিয়েছেন বিক্রেতারা।

বিক্রেতারা বলছেন- রাজশাহী সিটি করপোরেশন (রাসিক) উদ্যোগে ও রাজশাহী চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সহযোগিতায় এই মেলা অনেক ভালো হয়েছে।

রাজশাহী চেম্বার অব কর্মাস অ্যান্ড ইন্ডাস্টির পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান জানান, আমরা চেষ্টা করেছি বাংলাদেশের ঐতিহ্য তুলে ধরতে। তাই তাঁত শিল্প, কুটির শিল্প, পাট শিল্প, হস্ত শিল্প মেলায় স্টল দেওয়া হয়েছে। স্টেলগুলোতে ক্রেতাদের সারা ভালো ছিল বলে ব্যবসায়ীরা আমাদের জানিয়েছেন।

তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশ-ভারত ৫ম সাংস্কৃতিক মিলন মেলায় আসা ভরতের অতিথিরা আমাদের শিল্প ও ঐতিহ্য দেখে গেলো। সেই সঙ্গে এই প্লাস্টিকের সময়ে আমাদের শিল্পগুলো তাদের মন কেড়েছে।

জানা গেছে, এই মিলন মেলাকে কেন্দ্র করে রাজশাহী কলেজ মাঠে ৩৫ স্টলে বিভিন্ন পণ্যে দোকান ছিল। স্টলগুলোতে তাঁত শিল্প, কুটির শিল্প, হস্ত শিল্প, রেশম শিল্প, মাটি ও বাঁশের তৈরি বিভিন্ন জিনিসপত্র বিক্রি হয়েছে।

এই মেলায় রংপুর থেকে আসা শতরঞ্জি নামের স্টলের বিক্রেতা নুকুল কুমার গ্রীনসিটি টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, মেলায় ক্রেতাদের সারা ভালো ছিল। প্রতিদিন কমপক্ষে ৫০ হাজার টাকার পণ্য বিক্রি হয়েছে। দেখা গেছে, ঘুরতে এসে বেশির ভাগ ক্রেতারাই কিছু না কিছু কিনেছেন।

তিনি আরো বলেন, মেলার স্টল থেকে শুরু করে সার্বিক বিষয়ে খোঁজ খবর রেখেছে রাজশাহী চেম্বার। মেলায় স্টল নিতে তাদের কোন ফি দিতে হয় নি। রাজশাহী চেম্বারের তৈরি বিভিন্ন স্টলগুলো ভালো হয়েছে। যাতে করে ক্রেতারা পণ্য কিনতে এসে অনুষ্ঠানও দেখতে পাচ্ছে।

মিলন মেলায় কালাই রুটি বিক্রির স্টল দিয়েছে ‘হেঁসেল’। বিক্রেতা সোনিয়া খাতুন জানান, প্রতিদিন ৩৫ থেকে ৪০ হাজার টাকার বিক্রি হয়েছে। এখানে শুধু কালাই রুটিই নয়, অন্য ধরনের খাবারও রয়েছে। তিনি গ্রীনসিটি টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, রাজশাহী চেম্বার তৃণমূল থেকে নারী উদ্যোক্তাদের উঠিয়ে আনার চেষ্টার করেছে। তারা সব সময় ব্যবসায়ীদের পাশে থাকে। তারই অংশ হিসেবে এতোবড় আয়োজনে এসব উদ্যোক্তাদের স্টল দেওয়ার জন্য রাজশাহী চেম্বারকে ধন্যবাদ।

মেলায় পাট শিল্পের বিভিন্ন জিনিসের দোকান ছিল দুলাল। দুলাল জানান, সব মানুষের কাছে একটা মেসেজ দিতে হবে; কেনো তারা পাটের তৈরি পণ্য কিনবেন। পাটের পরিচয় জানাতে হবে। এই পাটের তৈরি সবধরনের জিনিসই পরিবেশ বান্ধক। এতে ক্ষতিকারক কিছুই নেই। তিনি আরো বলেন, এটি একটি প্রদর্শনী মেলা। এখানে অনেক মানুষের সমাগম ঘটেছে। পাটের পণ্য তুলনামূলক ভালো বিক্রি হয়েছে।

No description available.

রাজশাহী চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি মাসুদুর রহমান রিংকু গ্রীনসিটি টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, পুরো আয়োজনের জন্য রাসিক মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামানকে ধন্যবাদ জানায়। তিনি রাজশাহী চেম্বারকে মিলনমেলায় অংশগ্রহণের সুযোগ করে দিয়েছেন। তিনি বলেন, এই মেলা খুবই ভালো হয়েছে। স্টলগুলোতে কেনা-বেচা ভালো হয়েছে। আমরা কৃষি, তাঁত শিল্প, কুটির শিল্প, হস্ত শিল্প, রেশম শিল্প, মাটি ও বাঁশের তৈরি বিভিন্ন জিনিসপত্র হাই লাইট করার চেষ্টা করেছি। এছাড়া মেলায় অর্গানিক ফুডও। সবমিলে হাজারো মানুষের সমাগমে মিলন মেলা ভালো হয়েছে।

উল্লেখ্য, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও বাংলাদেশ-ভারত মৈত্রীর ৫০ বছর পূর্তিতে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের পৃষ্ঠপোষকতায় ফ্রেন্ডস অব বাংলাদেশের উদ্যোগে রাজশাহীতে ২৫ থেকে ২৮ ফেব্রুয়ারি উভয় দেশের অংশগ্রহণে সাংস্কৃতিক মিলনমেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ২৫ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ-ভারত ৫ম সাংস্কৃতিক মিলনমেলায় অংশ নিতে ভারতের মন্ত্রী সহ ৩৬ সদস্যের একটি দল রাজশাহীতে আসেন। আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি মিলনমেলা শেষে তারা ভারতে ফিরে যাবেন। এদিকে মেলা চলাকালে রাজশাহী চেম্বার অব কমার্স ইন্ডাস্ট্রির সহযোগিতায় রাজশাহী কলেজ মাঠে ৩৫ স্টলের অংশগ্রহণে পণ্য মেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। মেলা আর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান দেখতে হাজার হাজার দর্শক রাজশাহী কলেজ মাঠে জড়ো হন।

সর্বশেষ সংবাদ

No posts to display