শনিবার, ফেব্রুয়ারি ৪, ২০২৩
Homeরাজশাহী প্রতিদিনচাঁপাইনবাবগঞ্জচাঁপাইনবাবগঞ্জের আমকে বিশ্বে পরিচিত করবে ‘বঙ্গবন্ধু ম্যাংগো মিউজিয়াম’

চাঁপাইনবাবগঞ্জের আমকে বিশ্বে পরিচিত করবে ‘বঙ্গবন্ধু ম্যাংগো মিউজিয়াম’

গ্রীনসিটি ডেস্ক:


চাঁপাইনবাবগঞ্জের অর্থকরী ফসল আমকে বিশ্বে ব্যাপক পরিসরে পরিচিত করতে এবং আমপ্রিয় দর্শনার্থীদের সুবিধার্থে জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার কানসাটে নির্মিত হচ্ছে বঙ্গবন্ধু লাইভ ম্যাংগো মিউজিয়াম। এ মিউজিয়াম ঘিরে বিভিন্ন পরিকল্পনা করা হচ্ছে। বঙ্গবন্ধু লাইভ ম্যাংগো মিউজিয়াম হবে দেশের সর্ববৃহৎ আমের জার্মপ্লাজম (মাতৃগাছ সংরক্ষণ) সেন্টার। ফলে বারোমাসিসহ দেশের সকল প্রকার আমের জাত এখানে রোপণ ও সংরক্ষণ করা হবে।

অন্যদিকে বিলুপ্তপ্রায় সব জাতের আম ছড়িয়ে দেওয়া হবে বাংলাদেশসহ বিশ্বে। থাকবে সংগ্রহকৃত বিদেশি আমের জাতও। এ ছাড়া এ মিউজিয়ামে এসে সবাই প্রাকৃতিক পরিবেশে দেশের সব প্রজাতির আম গাছ দেখার সুযোগ পাবেন।

জানা গেছে, শিবগঞ্জ উপজেলার ১৫ ইউনিয়ন ও এক পৌরসভায় ২০ হাজার ৫৩০ হেক্টর জমিতে ১৫ লাখ ২৫ হাজার ২৫০টি গাছে প্রায় ৩ লাখ মেট্রিক টন উৎপাদিত আম দেশের বিভিন্ন জেলায় ও বিদেশে রপ্তানি হচ্ছে। শিবগঞ্জে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে ৮০% লোকের জীবিকা নির্ভর করে আমের ওপর। শতাধিক বছর আগে থেকেই শিবগঞ্জের আম অর্থকরী ফসল হিসেবে আখ্যায়িত। মাঝখানে আমের ঐতিহ্য কিছুটা ম্লান হয়ে গেলেও বর্তমানে শিবগঞ্জ উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে তৈরি হয়েছে কানসাট রাজার বাগানে বঙ্গবন্ধু লাইভ ম্যাংগো মিউজিয়াম। যার কাজ দ্রুত এগিয়ে চলেছে।

এ মিউজিয়ামের মাধ্যমে একদিকে যেমন শিবগঞ্জের আমের হারানো গৌরব ফিরে আসবে, অন্যদিকে অনেক লোকের কর্মসংস্থান হতে যাচ্ছে। চিত্তবিনোদনের ক্ষেত্রেও স্থানটির সুনাম অর্জনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এর পাশাপাশি সব জাতের আম, আমের পাতা, কান্ড ইত্যাদি বৈজ্ঞানিকভাবে সংরক্ষণ করে মিউজিয়ামের অভ্যন্তরে প্রদর্শন ও গবেষণার সুযোগ থাকবে।
উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয় আম ব্যবসায়ীদের সূত্রে জানা গেছে, প্রায় ৩২ একর খাসজমির ওপর স্থাপিত বঙ্গবন্ধু লাইভ ম্যাংগো মিউজিয়ামে প্রায় ১০০ বছরের পুরনো ১৬ জাতের ২ হাজার ১০০ আম গাছ আছে। এ বাগান ঘিরে প্রায় ১০০ বছর আগে ময়মনসিংহের জমিদার রাজা শশিকান্ত আচার্য কানসাটে কাচারিবাড়ি নির্মাণের মাধ্যমে খাজনা আদায় করতেন।
তাঁর হাতে এ আমবাগান তৈরি হয়, যা কুজ্জা রাজার বাগান নামে পরিচিত।

তবে এ বিশাল বাগান ঘিরে এখানে বসত মাদকের হাট ও আড্ডা, চলত নানা ধরনের অসামাজিক কার্যকলাপ। লুটপাট হতো বিশাল অঙ্কের সরকারি রাজস্ব। বিষয়টি শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাকিব আল রাব্বির নজরে এলে বঙ্গবন্ধু লাইভ ম্যাংগো মিউজিয়াম প্রতিষ্ঠার সিদ্ধান্ত নিয়ে কাজ শুরু করেন।

প্রথমে সেখানে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা ২৭টি স্থাপনা ও বাড়ি উচ্ছেদ করে তাদের অন্য স্থানে পুনর্বাসন করা হয়েছে। নির্ধারণ করা হয়েছে সীমানাহীন বাগানটির সীমানা। জরাজীর্ণ রেস্ট হাউসটি আধুনিকীকরণ করা হয়েছে। জাতির পিতার ম্যুরালসহ দৃষ্টিনন্দন গেট, পুকুর খনন, ১০০ জাতের নামকরণসহ ম্যাংগোপিডিয়া প্রকাশনা, আধুকি জার্মপ্লাজমের চারা রোপণ, টপ ওয়ার্কিংয়ের মাধ্যমে পুরনো গাছকে আধুনিক গাছে রূপান্তর, নার্সারি নির্মাণ শেষ হয়েছে। বর্তমানে পর্যটকদের জন্য ছাউনির ব্যবস্থা করা হয়েছে, বাগানের মধ্যে নির্মাণ করা হয়েছে আরসিসি রাস্তা, আমজাত পণ্যের প্রদর্শন কেন্দ্রও করা হচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে আম গবেষণা কেন্দ্রের মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মুখলেশুর রহমান জানান, সারা দেশে প্রায় ৮০০ ধরনের আম রয়েছে, তার মধ্যে শুধু চাঁপাইনবাবগঞ্জেই রয়েছে ৩৫০ জাতের আম।

স্থানীয় সংসদ সদস্য ডা. সামিল উদ্দিন আহম্মেদ শিমুল বলেন, বঙ্গবন্ধু লাইভ ম্যাংগো মিউজিয়ামের মাধ্যমে শিবগঞ্জের ইতিহাস-ঐতিহ্য ধরে রাখতে উপজেলা প্রশাসনের সঙ্গে আলোচনা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে এবং ভবিষ্যতে যাতে অক্ষুণ্ণ থাকে সে ব্যাপারে সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সর্বশেষ সংবাদ