রবিবার, ফেব্রুয়ারি ৫, ২০২৩
Homeগ্রীনসিটি স্পেশালরাজশাহীতে ৭২ বছরের ঐতিহ্য রহমানিয়ার ‘শাহি ফিরনি’

রাজশাহীতে ৭২ বছরের ঐতিহ্য রহমানিয়ার ‘শাহি ফিরনি’

নিজস্ব প্রতিবেদক:

ছয় আনা দামে ৭২ বছর আগে পাওয়া যেত এক বাটি ফিরনি। এখনও মাটির ছোট বাটিতে সেই ফিরনি পাওয়া যাচ্ছে। তবে স্বাদ একই থাকলেও বেড়েছে দাম। এখন প্রতি বাটি ফিরনি বিক্রি হচ্ছে ৩০ টাকায়।

রহমানিয়া নামের হোটেলটির এই ফিরনি রাজশাহীর মানুষের কাছে অত্যন্ত জনপ্রিয়। রমজান মাস এলে ইফতারির অনুষঙ্গ হিসেবে এর চাহিদা বাড়ে কয়েক গুণ। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি।

রাজশাহীর ঐতিহ্যবাহী রহমানিয়া হোটেল ১৯৫০ সাল থেকে এই ফিরনি বিক্রি করছে। শুরুটা করেছিলেন আনিসুর রহমান খান। ভারতের এ খাবারটি তিনিই রাজশাহীতে জনপ্রিয় করে তোলেন। রহমানিয়ার এই ‘দিল্লির শাহি ফিরনি’ ৭২ বছর ধরেই চলছে একনামে। চালের গুঁড়া, কিশমিশ, চেরি ফল ও চিনির সঙ্গে নানা ধরনের মসলা মিশিয়ে তৈরি হয় এ ফিরনি। প্রজন্মের পর প্রজন্ম এর স্বাদ গ্রহণ করে যাচ্ছে।

হোটেলটির স্বত্তাধিকার এখন রিয়াজ আহমেদ খান। প্রতিষ্ঠাতা আনিসুর রহমান তার দাদা। রমজান মাসে দিল্লির শাহি ফিরনি তাঁদের প্রধান আকর্ষণ। বছরের পর বছর একশ্রেণির ক্রেতা রমজানে প্রতিদিন তাদের ফিরনি কিনে নিয়ে যান। প্রতিনিয়ত নতুন ক্রেতাও আসেন। রমজানে ক্রেতা সামলাতে রীতিমতো হিমশিম খেতে হয় তাঁদের।

ক্রেতা আবু সুফিয়ান বললেন, তার বাবা এই ফিরনির ভীষণ ভক্ত। তাই প্রতিদিনই ইফতারের জন্য ফিরনি কিনে নিয়ে যান তিনি। সুফিয়ান বলেন, কয়েক বছর আগেও এই ফিরনি বিক্রি হতো ১৫ টাকায়। এখন ৩০ টাকা হয়েছে। তা-ও তাঁরা অতুলনীয় স্বাদের এই ফিরনি খাওয়া ছাড়েননি।

নগরীর গণকপাড়ায় রহমানিয়া হোটেলে গিয়ে দেখা যায়, প্যাকেজভাবে ইফতার বিক্রি করা হচ্ছে। এর মধ্যে ৭০ টাকার ইফতারের প্যাকেজে পাওয়া যাচ্ছে ছোলা, মুড়ি, খেজুর, কলা, শশা, জিলাপি পিঁয়াজু, বেগুনি, আলুর চপ ও সমুচা। এছাড়া ১৭০ টাকায় রহমানিয়া ইফতার স্পেশালে থাকছে আপেল, ফিরনি, খেজুর, জুস, পানি সাসালিক সিঙ্গারা, জিলাপি, ক্রিসপি চিকেন। ১২০ টাকার প্যাকেজে তেহেরি, পিঁয়াজু, বেগুনি, জিলাপি, খেজুর, কলা, শশা, ছোলা ও পানি। ৭০ টাকায় থাকছে তেহেরি ও ডিম হাফ (সালাদ সহ)। এছাড়া সাসলিক চিকেন ৪০ টাকা, ক্রিসপি চিকেন ৫০ টাকা, সামী কাবাব ২০ টাকা, শাহি ফিরনি ৩০ টাকা, শিক কাবাব (গরু) ৭০ টাকা, শিক কাবাব (মুরগি) ৫০ টাকা, কাটি কাবাব ৩৫ টাকা, ছোলা প্রতি কেজি ১২০ টাকা, পিঁয়াজু, বেগুনি প্রতিপিস ৫ টাকা করে। এছাড়া ডিমের চপ ১০ টাকা, সমুচা (খাসি) ১৫ টাকা, হালিম হাফ ৮০ ও ফুল ১৫০ টাকা, আস্ত মরগি মসলা মোসাল্লাম ৫০০ টাকা, চিকেন গ্রিল (প্রতি কোয়া) ১০০ টাকা, কাচ্চি বিরিয়ানি (হাফ) ১৫০ টাকা, মুরগি বিরিয়ানি (হাফ) ১৪০ টাকা, হায়দ্রাবাদী বিরিয়ানি (বাসমতি চাল) ১৭০ টাকা, জিলাপি প্রতি কেজি ১৬০ টাকা, রেশমি জিলাপি প্রতিকেজি ৩০০ টাকা, চিকেন ফ্রাই ৯০ টাকা, ভেজিটেবল রোল ২০ টাকা, খিচুরি ডিম ভুনা ৫০ টাকা, খাসির রান ১২০০ টাকা, মাঠা ১ লিটার ২০০ টাকা ও বোরহানি ১ লিটার ১৬০ টাকা দরে বিক্রি করা হচ্ছে।

ক্রেতা রাশেদ জানান, রহমানিয়া ইফতারে অন্য আইটেমের মধ্যে ফিরনি বেশ জয়প্রিয়। ইফতারের সময় ফিরনি অনেক ভালো লাগে। পরিবারের অন্য সদস্যদের পছন্দের খাবার ফিরনি।

সর্বশেষ সংবাদ

No posts to display