ঢাকাশনিবার , ২৫ মার্চ ২০২৩
  • অন্যান্য

রাজশাহীতে ৪ চোর গ্রেফতার, কাভার্ড ভ্যান উদ্ধার

মার্চ ২৫, ২০২৩ ২:৩১ অপরাহ্ণ । ৯৭ জন

রাজশাহী নগরীর শাহ্‌মখদুম থানার বড়বনগ্রাম এলাকা হতে একটি পণ্য সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের ব্যাটারী চালিত অটো কাভার্ড ভ্যান-সহ নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী চুরির ঘটনায় চোর চক্রের ৪ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে আরএমপি’র শাহ্‌মখদুম থানা পুলিশ।

এসময় তাদের কাছ থেকে চুরি যাওয়া ১০ হাজার টাকা মূল্যের নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী-সহ অটো ভ্যানটি উদ্ধার হয়।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন, মো: আল আমিন ভান্ডারী (২৪), মো: মিনহাজ আলী জয় (২৬), মো: সারোয়ার হোসেন পার্থ (২২) ও মো: ইমামুল (৩২)। আল আমিন ভান্ডারী রাজশাহী মহানগরীর বোয়ালিয়া থানার সপুরা ম্যাচ ফ্যাক্টরী এলাকার আব্দুল মোতালেবে ছেলে, মিনহাজ একই থানার সপুরা শালবাগানের মো: সেন্টু বাবুর্চির ছেলে, সারোয়ার একই এলাকার মৃত ইকবালের ছেলে এবং ইমামুল শেখ রবে ছেলে।

আরএমপির এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। এতে বলা হয়, মো: সিয়াম একটি খাদ্য পণ্য সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের ডেলিভারি ম্যান হিসেবে চাকরি করেন। সে গত ২২ শে মার্চ পৌনে ১০ টায় পণ্য সরবরাহের জন্য ভ্যান নিয়ে মালামাল-সহ বাসা থেকে বের হয়। সকাল সাড়ে ১০ টায় শাহ্‌শখদুম থানাধীন বারো রাস্তার পাশে বখশীয়া খানকাহ শরীফের সামনে অটো ভ্যানটি রেখে খানকাহ শরীফের ভিতরে বাথরুমে যান। তিনি কিছুক্ষণ পর এসে দেখেন তার অটো ভ্যানটি নাই। তিনি আশপাশে বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুঁজি করে বুঝতে পারেন যে, তার ভ্যানটি চুরি হয়েছে। তখন তিনি বিষয়টি তার প্রতিষ্ঠানের মালিক মো: রাকিবুল হাসান জুয়েলকে অবগত করেন।  জুয়েল শাহ্‌মখদুম থানায় গত ২২শে মার্চ একটি চুরির মামলা করেন।

চুরির মামলার পর শাহ্‌মখদুম থানা পুলিশের একটি টিম চোরাই মালামাল উদ্ধার-সহ আসামি গ্রেফতারে অভিযান শুরু করেন।

পরবর্তীতে গত ২৩শে সকাল ৮ টায় শাহ্‌মখদুম থানা পুলিশের ওই টিম আরএমপি’র সাইবার ক্রাইম ইউনিটের সহায়তায় তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান পরিচালনা করে আসামি মো: আল আমিন ভান্ডারীকে তার বাড়ি হতে গ্রেফতার করেন। এসময় তার দেওয়া তথ্যমতে তার বাড়ীর পিছন হতে ভ্যানের বিভিন্ন অংশ খোলা অবস্থায় উদ্ধার করেন।

শাহ্‌শখদুম থানা পুলিশ গ্রেফতারকৃত আসামি আল আমিনকে সঙ্গে নিয়ে বিভিন্ন জায়গায় অভিযান পরিচালনা করে ওই দিন দুপুর ২ টায় তার সহযোগী মো: মিনহাজ, সারোয়ার ও ইমামুলকে আনুমানিক ১০ হাজার টাকা মূল্যের নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী ও চোরাই কাভার্ড ভ্যানটির কিছু অংশ-সহ গ্রেফতার করেন।

তাদের বিরুদ্ধে মহানগরের বিভিন্ন থানায় চুরি, ছিনতাই ও মাদক-সহ বিভিন্ন অপরাধে একাধিক মামলা রয়েছে।তাদের বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে বলেও জানানো হয়েছে।