ঢাকাশনিবার , ২০ মে ২০২৩

‘আমার মা-বাপ যা পারেনি তা সাংবাদিকরা করেছে’

মে ২০, ২০২৩ ১১:০১ পূর্বাহ্ণ । ৮২ জন

‘আমার মা-বাপ (বাবা), আত্মীয়-স্বজনরা যা করতে পারেনি, তা সাংবাদিকরা করেছে। আমি খুবই খুশি। আমার বিপদে এতোগুলো সাংবাদিক পাশে দাঁড়িয়েছে। আমি কোনোদিন এতো দূরে আসতে পারতাম না, আমার চিকিৎসা ও মেশিন (অক্সিজেন কনসেনট্রেটর) কিনতে পারতাম না। আমাদের শেষ আশ্রয় সাংবাদিকরা। আল্লাহ আপনাদের (সাংবাদিক) ভালো করুক।’

শনিবার (২০ মে) সকালে এভাবেই ঢাকা পোস্টকে কথাগুলো বলছিলেন অক্সিজেনের পাইপ নাকে নিয়ে রিকশা চালানো মাইনুরজ্জামান সেন্টু। তিনি বর্তমানে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে ১৪নং ওয়ার্ডের ১২নং বেডে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

 

এর আগে বৃহস্পতিবার (১৮ মে) দুপুরে রাজশাহী জেলা প্রশাসক (ডিসি) শামীম আহমেদ রামেক হাসপাতালে গিয়ে সেন্টুর সঙ্গে কথা বলে তার চিকিৎসার খোঁজখবর নেন। এ সময় তিনি সেন্টুর যাবতীয় চিকিৎসার ভার নেন। একই সঙ্গে তার কর্মসংস্থানের ব্যবস্থার আশ্বাস দেন। এছাড়া শ্রম ও কর্মসংস্থাপন প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান সেন্টুর তাৎক্ষণিক চিকিৎসা সহায়তার ঘোষণা দেন। এমপিপুত্র ও সমাজসেবক ফারাজ করিম চৌধুরী তাকে অর্থিকভাবে সহায়তা করেন মেশিন (অক্সিজেন কনসেনট্রেটর) কেনার জন্য। এছাড়া না প্রকাশ না করে অনেকে সহায়তা করেছে।

হাসপাতালের ১৪নং ওয়ার্ডে চিকিৎসক ডা. নিশাদ জামি বলেন, সেন্টুকে প্রায় সব চিকিৎসকই চেনেন। কারণ তিনি এর আগেও মেডিসিন ওয়ার্ডগুলোতে চিকিৎসা নিয়েছেন। আমরা তার চিকিৎসা দিচ্ছি। এখন তিনি আগের চেয়ে ভালো আছেন।- সূত্র: ঢাকা পোস্ট

Paris