ঢাকাশনিবার , ৮ জুলাই ২০২৩
  • অন্যান্য

প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসায় যা লিখলেন মাশরাফি

জুলাই ৮, ২০২৩ ৭:২৯ অপরাহ্ণ । ৯৬ জন

অবসর ভেঙে আবারও আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরার কথা শুক্রবার জানিয়েছিলেন তামিম ইকবাল। এ ঘটনার নেপথ্যে ছিলেন সাবেক অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। তার মাধ্যমেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠকে বসেন তামিম। পরবর্তীতে মাশরাফি সবাইকে জানান কীভাবে তামিমকে গণভবনে নিয়ে গিয়েছিলেন।

এবার প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে ফেসবুকে একটি আবেগঘন পোস্ট করেছেন মাশরাফি বিন মুর্তজা-

নিজের ব্যক্তিগত ফেসবুক অ্যাকাউন্টে মাশরাফি লিখেছেন, ‘সাকিবের ডেঙ্গু হলে, তিনি হাসপাতালে গিয়ে হাজির। মুশফিকের ব্যক্তিগত কথা বলতে হবে, তিনি বললেন, ‘‘চলে আসো গণভবনে।’’ তামিম হুট করে অবসরে, তিনি ডেকে নিয়ে সমাধান করে দিলেন। এরকম আরও অনেক উদাহরণ আছে একজন নেতার, যিনি দেশের অর্থনীতি থেকে শুরু করে খেলাধুলা, সবকিছুর খেয়াল রাখেন।’

এরপর সাবেক সতীর্থ ক্রিকেটারদের উদ্দেশে মাশরাফির পরামর্শ, ‘প্রিয় খেলোয়াড় ভাইরা, এটা আপনাদের বুঝতে হবে যে, এসব তার দুর্বলতা নয়, বরং তার ভালোবাসা। সেই ভালোবাসা থেকেই তিনি আপনাদের সম্মান করেন। আপনাদেরও উচিত ভালোবাসা দিয়ে সেই সম্মানটা ফিরিয়ে দেওয়া। অর্থাৎ নিজের কাজটা ঠিকভাবে করা, পুরো মনোযোগ দিয়ে খেলা ও সর্বোচ্চ চেষ্টা করা।’

dhakapost
মাশরাফির ফেসবুক পোস্ট

টাইগার ক্রিকেটাররা সেই কাজটা ঠিকভাবে করতে পারবেন বলেই বিশ্বাস করেন মাশরাফি। তিনি লেখেন, ‘দেশের কোটি কোটি ক্রিকেটভক্ত আপনাদের দিকে তাকিয়ে, কারণ আপনারাই পারেন দেশ ও দেশের মানুষকে আনন্দের জোয়ারে ভাসাতে। কোটি কোটি মানুষ প্রতিদিনের জীবনযুদ্ধের পরও একটু আশা নিয়ে কখনও গ্যালারিতে, কখনও টেলিভিশনের সামনে বসে আপনাদের দেখতে, স্রেফ আপনাদের ভালোবেসে আর আপনাদের কাছ থেকে একটু আনন্দ পাওয়ার আশায়। আপনাদের জয় দেখে এই মানুষগুলো ভাবে, তারা নিজেরাই জিতেছে। এই আনন্দ, এই সুখ পৃথিবীর কোনো কিছুতেই আসবে না। আপনারা জিতবেন, আমরাও জিতব, এই আশাতেই আছি আমরা।’

এর আগে অবসর ভাঙা তামিমকে নিয়ে বাংলাদেশের সফলতম এই ওয়ানডে অধিনায়ক বলেছিলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ওর সঙ্গে যোগাযোগ করতে চাইছিলেন। তামিম তো সবকিছু থেকে দূরে ছিল। প্রধানমন্ত্রী তাই আমাকে বলেছেন ওর সঙ্গে যোগাযোগ করতে। আমি তাকে বলেছি যে, ‘‘তামিমকে আমি নিয়ে আসছি আপনার কাছে।’’ এরপর তামিমকে আমি বলেছি যে, তুই গিয়ে মনের কথা বল। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর যে কথা আছে, সেটা তিনি বলবেন। তারপর যে সিদ্ধান্ত হওয়ার, হবে। আমার দায়িত্ব ছিল ওকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে নিয়ে যাওয়া।’

তামিম তার সিদ্ধান্ত বদলানোয় খুশি হয়েছেন মাশরাফি। তবে তামিমকে নিয়ে তার চাওয়ার কথা জানাতেও ভুল করেননি। জাতীয় দলের জ্যেষ্ঠ ক্রিকেটার হিসেবে তামিমকে মাঠ ও মাঠের বাইরের বিষয় সামলানো এবং পরবর্তীতে নিজের পারফরম্যান্স দিয়ে সবকিছুর জবাব দেওয়ার পরামর্শ দেন মাশরাফি।

ঢাকা পোস্ট