ঢাকামঙ্গলবার , ২৫ জুলাই ২০২৩

ড. তাহের হত্যা: ফাঁসির আসামি জাহাঙ্গীরের সঙ্গে শেষ দেখা পরিবারের

জুলাই ২৫, ২০২৩ ৬:৫২ অপরাহ্ণ । ১৫৬ জন

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ভূ-তত্ত্ব ও খনিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ড. এস তাহের হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি ড. মিয়া মোহাম্মদ মহিউদ্দিন ও জাহাঙ্গীর আলমের পরিবারকে সাক্ষাতের জন্য ডেকেছে কারা কর্তৃপক্ষ। এর মধ্যে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জাহাঙ্গীরের বাবা আজিমুদ্দিনসহ পরিবারের প্রায় ৩৫ জন সদস্য মঙ্গলবার (২৫ জুলাই) দুপুর ১টায় তার সঙ্গে শেষ দেখা করতে রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারের ভেতরে প্রবেশ করেন।

তবে মহিউদ্দিনের পরিবার ওই সময় পর্যন্ত আসেনি।

রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারের ভেতরে প্রবেশের আগে জাহাঙ্গীরের ছোট ভাই মিজানুর রহমান বলেন, গত রোববার (২৩ জুলাই) কারা কর্তৃপক্ষ তাদের চিঠি দিয়ে জাহাঙ্গীরের সঙ্গে দেখা করতে বলেছিল। তবে আপিল বিভাগে রিট পিটিশন পেন্ডিং থাকায় সেদিন তারা দেখা করেননি। মঙ্গলবার (২৫ জুলাই) সকালে আপিল বিভাগ রিট খারিজ করে দেওয়ায় তারা জাহাঙ্গীরের সঙ্গে দেখা করতে এসেছেন।

এদিকে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত অপর আসামি মিয়া মোহাম্মদ মহিউদ্দিনের পরিবারের সদস্যরা কারাগারে তার সঙ্গে কখন দেখা করতে আসবেন, তা এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারের উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি প্রিজন) কামাল হোসেন জানান, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. এস তাহের হত্যা মামলার মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত দুই আসামির ফাঁসি কার্যকর করার প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি এরই মধ্যে গ্রহণ করা হয়েছে। কারাবিধি অনুযায়ী ২৫ জুলাই থেকে আগামী ৩০ জুলাইয়ের মধ্যেই যে কোনো সময় আদালতের দেওয়া দুই আসামির ফাঁসির রায় কার্যকর করা হবে।

এদিকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ভূ-তত্ত্ব ও খনিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ড. এস তাহের হত্যা মামলায় চূড়ান্ত রায়ে মৃত্যুদণ্ড পাওয়া আসামি জাহাঙ্গীরের আটকের বৈধতা নিয়ে করা রিট খারিজের বিরুদ্ধে আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন আপিল বিভাগ।

মঙ্গলবার প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর নেতৃত্বে আপিল বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আদালতে আবেদনের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী সমরেন্দ্র নাথ গোস্বামী। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল শেখ মোহাম্মদ মোরশেদ।

এর আগে জাহাঙ্গীরের ভাই সোহরাবের করা রিটের শুনানি শেষে গত ১৭ জুলাই বিচারপতি ভীষ্মদেব চক্রবর্তী ও বিচারপতি মো. আলী রেজার হাইকোর্ট বেঞ্চ রিট খারিজ করে আদেশ দেন। পরে আপিল বিভাগে লিভ টু আপিল করে ফাঁসি কার্যকরের প্রক্রিয়া স্থগিত চাওয়া হয়। আর ২ মে আপিল বিভাগের রায় পুনর্বিবেচনা (রিভিউ) চেয়ে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত দুই আসামি ও যাবজ্জীবন দণ্ডিত এক আসামির আবেদন খারিজের রায় প্রকাশ করা হয়। পরে দুই আসামি প্রাণভিক্ষার আবেদন করেন।

২০০৬ সালের ১ ফেব্রুয়ারি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের বাসা থেকে নিখোঁজ হন ভূ-তত্ত্ব ও খনিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক এস তাহের আহমেদ। ৩ ফেব্রুয়ারি বাসার পেছনের ম্যানহোল থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। অধ্যাপক তাহেরের ছেলে সানজিদ আলভী আহমেদ ওইদিন নগরীর মতিহার থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। তদন্ত শেষে ২০০৭ সালের ১৭ মার্চ ছয়জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট দেয় পুলিশ।

এরপর ২০০৮ সালের ২২ মে রাজশাহীর দ্রুত বিচার আদালত চারজনকে ফাঁসির আদেশ ও দুজনকে খালাস দেন। পরে দণ্ডপ্রাপ্তরা উচ্চ আদালতে আপিল করেন। আপিল বিভাগ মিয়া মহিউদ্দিন ও জাহাঙ্গীর আলমের রায় বহাল রাখলেও আসামি নাজমুল আলম ও তার স্ত্রীর ভাই আব্দুস সালামের সাজা কমিয়ে যাবজ্জীবন দেন। তবে আপিলে সাজা কমে যাবজ্জীবন হওয়া দুই আসামির দণ্ড বৃদ্ধি চেয়ে আপিল করে রাষ্ট্রপক্ষ। শুনানি শেষে ২০২২ সালের ৫ এপ্রিল আপিল বিভাগ হাইকোর্ট বিভাগের রায়ই বহাল রাখেন। ইতোমধ্যে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত দুই আসামির প্রাণভিক্ষার আবেদনও নাকচ করে দেন রাষ্ট্রপতি। বাংলানিউজ

Paris