ঢাকামঙ্গলবার , ১৬ জানুয়ারি ২০২৪
  • অন্যান্য

আইন লঙ্ঘন করে রাজনৈতিক পদে রুয়েটের অর্ধশত শিক্ষক কর্মকর্তা কর্মচারী

জানুয়ারি ১৬, ২০২৪ ৯:২৭ অপরাহ্ণ । ১০৬ জন

রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়-রুয়েট আইন অনুযায়ী কোনো শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারী রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে জড়াতে পারবেন না। সেই আইন লঙ্ঘন করে রাজনীতিতে জড়িয়েছেন অর্ধশতাধিক শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারী। তারা ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক সংগঠনের পদেও আসীন। এসব শিক্ষক ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নোটিশ দিয়েও লাগাম টানতে পারছেন না রুয়েট কর্তৃপক্ষ।

জানা গেছে, রুয়েটের শিক্ষকদের মধ্যে কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক নজরুল ইসলাম মণ্ডল বর্তমানে রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগ কমিটির ১০ নম্বর উপদেষ্টা। ইলেকট্রনিকস অ্যান্ড টেলিকমিউনিকেশন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক শ্যাম দত্ত মহানগর আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক। শ্যাম দত্তের স্ত্রী মৌসুমী মণ্ডলের নামে ঠিকাদারি লাইসেন্স রয়েছে। তার ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের নাম মেসার্স শব্দ এন্টারপ্রাইজ। অভিযোগ রয়েছে, রাজনৈতিক প্রভাবে ২০২০ সালে রুয়েটে ১৩ লাখ ২৬ হাজার টাকার এসি সরবরাহের কার্যাদেশ পায় মেসার্স শব্দ এন্টারপ্রাইজ।

রসায়ন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সিদ্ধার্থ শংকর সাহা মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। এর আগে তিনি ২০১৫-২০২০ মেয়াদে মহানগর আওয়ামী লীগের শিক্ষাবিষয়ক সম্পাদক ছিলেন। নানা বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের অভিযোগে পদ হারান তিনি।

রুয়েটের অতিরিক্ত রেজিস্ট্রার দিলীপ কুমার ঘোষ রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক। এর আগে তিনি ২০১২ চাকরিতে যোগদানের সময় সাংস্কৃতিক সম্পাদক ছিলেন। তখন তিনি পদত্যাগ না করেই রুয়েটে যোগদান করেছিলেন। রুয়েটের উপপরীক্ষা নিয়ন্ত্রক শাহনেওয়াজ সরকার সেডু নগরীর ২২ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, ডেপুটি রেজিস্ট্রার রোকনুজ্জামান বোয়ালিয়া থানা (পশ্চিম) আওয়ামী লীগের সর্বশেষ কমিটির সহসভাপতি। এখনো নতুন কোনো কমিটি হয়নি। মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মীর তৌহিদুর রহমান কিটু ২০১৪ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি রুয়েটের সেকশন অফিসার পদে নিয়োগ পান। পদোন্নতি পেয়ে বর্তমানে তিনি সহকারী পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক। এখন কোনো পদে না থাকলেও কিটুর প্রভাব গোটা ক্যাম্পাসেই। তিনি রুয়েট কর্তৃপক্ষের অনাপত্তি ছাড়াই ট্যুরিস্ট ভিসা নিয়ে ২০১৯ সালে দুবার ভারত ভ্রমণ করেন বলে অভিযোগ রয়েছে। রাজপাড়া থানা আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক পদে থাকাবস্থায় ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে হারুন অর রশিদ রুয়েটে সহকারী প্রকৌশলী পদে যোগদান করেন। তবে চাকরিতে যোগদানের পরই তিনি ওই পদ থেকে অব্যাহতি নেন। রুয়েট শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি থাকা অবস্থায় সহকারী প্রকৌশলী পদে চাকরি পান নাইম রহমান নিবিড়। তবে চাকরির ছয় মাস পরে তিনিও অব্যাহতি নেন। আর জনসংযোগ দপ্তরের সেকশন অফিসার আ ফ ম মাহমুদুর রহমান দীপন সর্বশেষ মহানগর যুবলীগের উপপ্রচার সম্পাদক ছিলেন। এরপর আর যুবলীগের কমিটি হয়নি। চাকরিতে যোগদানের সময় তিনি মহানগর ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদেও ছিলেন। নিরাপত্তা বিভাগের সেকশন অফিসার মামুনুর রশিদ বর্তমানে রাজশাহী জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহসভাপতি, পরিষদ শাখার সেকশন অফিসার সোহেল রানা বর্তমানে কাটাখালী পৌরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি। সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের জুনিয়র সেকশন অফিসার আব্দুল ওয়াহেদ খান টিটু মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে টিটু দীর্ঘদিন ক্যাম্পসে লাপাত্তা ছিলেন। ২০১৮ সালে ২৩ নভেম্বর থেকে ২০২৩ সালের ৩১ আগস্ট পর্যন্ত তিনি অফিসে অনুপস্থিত ছিলেন। এ কারণে নানা প্রক্রিয়া শেষে অনুপস্থিতকালীন বেতন-ভাতা গ্রহণের ২২ লাখ ১৮ হাজার ১৯ টাকা রুয়েটে ব্যাংক হিসাবে ফেরত প্রদানের নির্দেশ দিয়ে গত ১১ অক্টোবর টিটুকে চিঠি দেয় কর্তৃপক্ষ। রুয়েটের ৯৮তম সিন্ডিকেট সভায় এ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

এদিকে রিসার্চ অ্যান্ড এক্সটেনশন বিভাগের জুনিয়র সেকশন অফিসার মোহাম্মদ আলী রাজপাড়া থানা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। এর আগের কমিটিতে তিনি সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। রুয়েটের পদার্থ বিভাগের ডাটা প্রসেসর মহিদুল ইসলাম বর্তমানে শাহ্ মখদুম থানা আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশবিষয়ক সম্পাদক, কেমিক্যাল অ্যান্ড ফুড প্রসেসিং ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ডাটা প্রসেসর ও রুয়েট কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি আব্দুল্লাহ আল মামুন শুভ ২৫ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, জুনিয়র সেকশন অফিসার আব্দুল্লাহ আল মামুন ২৮ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের তথ্য ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক, সেন্ট্রাল লাইব্রেরির অ্যাটেনডেন্ট সাইফুল ইসলাম সানি বোয়ালিয়া থানা (পূর্ব) আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক এবং বিল্ডিং ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড কনস্ট্রাকশন ম্যানেজমেন্ট বিভাগের অফিস সহকারী জুয়েল রানা ২৫ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সাম্পাদক।

এ বিষয়ে রুয়েটে কম্পিউটার সায়েন্স বিভাগের অধ্যাপক ও রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা নজরুল ইসলাম মণ্ডলের সঙ্গে ফোনে কথা বলে তিনি জানান, ক্লাসে আছেন। পরে ফোন কল ব্যাক করবেন। কিন্তু পরে একাধিকবার ফোন করা হলেও আর রিসিভ করেননি। ইলেকট্রনিক বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ও মহানগর আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক শ্যাম দত্ত বলেন, ‘কখনো বিষয়টি ওভাবে ভাবিনি’। তবে রসায়ন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সিদ্ধার্থ শংকর সাহার দাবি করেছেন, চাকরির আগে রাজনৈতিক পদে ছিলেন। ৬-৭ বছর ধরে আর পদে নেই। তবে নেতকর্মীরা জানান, ২০২২ সালে মহানগর আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত স্বেচ্ছাসেবক লীগের সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি ও বর্ধিত সভায় উপস্থিত হয়ে বক্তব্য রেখেছেন সিদ্ধার্থ শংকর। আর অতিরিক্ত রেজিস্ট্রার ও মহানগর আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক দিলীপ কুমার ঘোষ জানান, তিনি পদত্যাগ করেছেন। কিন্তু পদত্যাগপত্র গৃহীত হয়েছে কি না জানেন না।

রুয়েটের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার আরিফ আহমেদ চৌধুরী বলেন, ‘কতিপয় শিক্ষক ও কর্মকর্তা-কর্মচারী দাপ্তরিক প্রক্রিয়ার ছুটি না নিয়েই বড় বড় নেতাদের নাম ভাঙিয়ে অফিস ফাঁকি দিয়ে রাজনৈতিক কর্মসূচিতে চলে যান। অনেকেই আবার রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে অফিসেও ঠিকমতো হাজির থাকেন না। এ কারণে নোটিশ দিয়ে সতর্ক করা হয়েছে। কিন্তু এ পর্যন্ত কেউ রাজনৈতিক পদ-পদবি ছেড়েছেন কি না তা জানা নেই।

এ বিষয়ে রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী কামাল বলেন, ‘দিলীপ ঘোষের পদত্যাগের চিঠি পাইনি। তবে আইনে বাধা থাকলে পদধারী সবার বিরুদ্ধেই সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে বিশ^বিদ্যালয়ের নিয়ন্ত্রক সংস্থা ইউজিসির সচিব অধ্যাপক ফেরদৌস জামান জানান, সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেবে ইউজিসি। আইন সবার জন্যই সমান। প্রজাতন্ত্রের কোনো কর্মচারীই আইনের ঊর্ধ্বে নয়।

আমাদের সময়

Paris