ঢাকাশনিবার , ২০ জানুয়ারি ২০২৪
  • অন্যান্য

রাজশাহীতে মৌসুমের দ্বিতীয় মৃদু শৈত্যপ্রবাহ শুরু

জানুয়ারি ২০, ২০২৪ ৮:৪২ অপরাহ্ণ । ১৮৩ জন

রাজশাহীতে মাত্র ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে তাপমাত্রা এক লাফে নেমেছে ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আজ (শনিবার) সকাল থেকে ফের শুরু হয়েছে চলতি মৌসুমের দ্বিতীয় মৃদু শৈত্যপ্রবাহ।

শনিবার (২০ জানুয়ারি) সকাল ৯টায় রাজশাহীতে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৯ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এর আগে শুক্রবার (১৯ জানুয়ারি) ছিল ১৩ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। অর্থাৎ এক দিনের ব্যবধানে ৪ ডিগ্রি তাপমাত্রা কমেছে পদ্মাপাড়ের তিলোত্তমা শহর রাজশাহীতে।

সাধারণত দিনের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৮ থেকে ১০ ডিগ্রির মধ্যে নামলে তাকে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ হিসেবে ধরা হয়। ৬ থেকে ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নামলে মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বলা হয়। এছাড়া ৪ থেকে ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নামলে তাকে তীব্র শৈত্যপ্রবাহ বলা হয়।

তাই হিমশীতল আবহাওয়ার এই মাপকাঠি বলছে- রাজশাহীর ওপর দিয়ে আজ শনিবার সকাল থেকে ফের মৃদু শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। এটি চলতি মৌসুমের দ্বিতীয় মৃদু শৈত্যপ্রবাহ। এর আগে গত ১৩ জানুয়ারি রাজশাহীতে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছিল ৯ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আর এটিই ছিল রাজশাহীতে চলতি মৌসুমের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা। এখন পর্যন্ত এর নিচে দিনের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা আর নামেনি।

এদিকে রাজশাহীতে চলতি বছর শীত নেমেছে দেরি করে। এই জানুয়ারি মাসের আগেও তেমন শীতের দাপট ছিল না। আগে জানুয়ারি মাসের প্রথম সপ্তাহ জুড়েই মাঝারি থেকে তীব্র শৈত্যপ্রবাহের কবলে থাকতো রাজশাহী। কিন্তু গেল প্রায় ৩-৪ বছর থেকে সেই অর্থে শীত পড়েনি। চলতি বছর তাও ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে তাপমাত্রা নামল এই দু-দিন (১৩ ও ২০ জানুয়ারি)। এছাড়া দিনের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা গড়ে ১০ ডিগ্রি থেকে ১৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যেই ওঠানামা করছে।

তবে এই শীতেই বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে রাজশাহীর স্বাভাবিক জীবনযাত্রা। ‘সর্বনিম্ন’ তাপমাত্রা খুব নিচে না নামলেও রোদ না ওঠায় কম থাকছে ‘সর্বোচ্চ’ তাপমাত্রা। আর সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন তাপমাত্রার ব্যবধান কমে আসায় হাড় কাঁপানো শীত অনুভূত হচ্ছে। প্রায় দুই সপ্তাহ থেকে বিকেলের আগে সূর্যের মুখ দেখা যাচ্ছে না। আর রোদ ওঠার কিছুক্ষণ পরই মেঘ বা কুয়াশায় তা ঢেকে যাচ্ছে। মেঘ এবং ঘন কুয়াশার মধ্যেই বইছে উত্তরের হিমেল হাওয়া।

রাজশাহী আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের জ্যেষ্ঠ পর্যবেক্ষক আব্দুস সালাম বলেন, বৃহস্পতিবার (১৮ জানুয়ারি) সকাল ৯টায় রাজশাহীর সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছিল ১০ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এরপর শুক্রবার (১৯ জানুয়ারি) রেকর্ড করা হয় ১৩ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আর আজ শনিবার (২০ জানুয়ারি) সকাল ৯টায় রেকর্ড করা হয়েছে ৯ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। অর্থাৎ হঠাৎ করেই আজ ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা নেমে গেছে। এছাড়া আজকের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড হতে পারে বেলা ৩টায়। তবে শুক্রবার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছিল ২১ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

রাজশাহী আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ইনচার্জ) রহিদুল ইসলাম বলেন, জানুয়ারি মাস শুরুর পর থেকে প্রায় বেশিরভাগ সময়ই দিন ও রাতের তাপমাত্রার পার্থক্য কম থাকছে। আকাশে রোদ না ওঠায় মেঘমেদুর ও কুয়াশাচ্ছন্নই থাকছে রাজশাহীর আবহাওয়া। আর এর কারণে শৈত্যপ্রবাহ না থাকলেও দীর্ঘসময় ধরে তীব্র শীত অনুভূত হচ্ছে। তবে আজ ফের মৃদু শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে রাজশাহী অঞ্চলের ওপর দিয়ে।

এছাড়া আবহাওয়া অধিদপ্তরের পূর্বাভাসে বলা হয়েছে- শনিবার থেকে রাজশাহীসহ দেশের কিছু অঞ্চলে নতুন করে শৈত্যপ্রবাহ দেখা দিতে পারে। এর ফলে সারা দেশে আজ থেকে আরও বাড়তে পারে শীতের তীব্রতা। আজ মধ্যরাত থেকে আগামীকাল রোববার (২১ জানুয়ারি) সকাল পর্যন্ত দেশের নদী অববাহিকায় মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা থাকতে পারে।

রাজশাহী ছাড়া দেশের অন্য অঞ্চলেও হালকা থেকে মাঝারি মাত্রায় কুয়াশা পড়তে পারে। ইতোমধ্যে দেশের কিছু কিছু অঞ্চলে সামান্য বৃষ্টিপাত হয়েছে। তাই আর বৃষ্টির সম্ভাবনা নেই। মেঘ কেটে যাওয়ায় এখন তাপমাত্রা কমবে এবং তা অব্যাহত থাকতে পারে। ফলে সারা দেশেই শীতের অনুভূতি বাড়বে।