ঢাকারবিবার , ২৪ মার্চ ২০২৪

বর্ণাঢ্য আয়োজনে রাজশাহীতে ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলা শুরু

মার্চ ২৪, ২০২৪ ৭:৩৩ অপরাহ্ণ । ৫৪ জন

বর্ণাঢ্য আয়োজনে রাজশাহীতে দুই দিনব্যাপী ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলা শুরু হয়েছে। রোববার (২৪ মার্চ) সকালে রাজশাহী জেলা প্রশাসক কার্যালয় প্রাঙ্গণে এ মেলার উদ্বোধন করা হয়।

বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ের আয়োজনে এবং জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ও জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় দুই দিনব্যাপী এই উদ্ভাবনী মেলা শেষ হবে সোমবার (২৫ মার্চ)।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে, রাজশাহী জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে ‘স্মার্ট বাংলাদেশে ও উদ্ভাবন: ডিজিটাল বাংলাদেশ থেকে স্মার্ট বাংলাদেশে উত্তরণ’ শীর্ষক আলোচনা সভায় অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিভাগীয় কমিশনার ড. দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ূন কবীর।

আলোচনা সভার শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, রাজশাহী জেলা প্রশাসক শামীম আহমেদ।

মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (উন্নয়ন ও আইসিটি) তরফদার মো. আক্তার জামীলের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সংগঠন ও ব্যবস্থাপনা অনুবিভাগের অতিরিক্ত সচিব শেখ মোমেনা মনি, জেলা প্রশাসক শামীম আহমেদ, অতিরিক্ত ডিআইজি (প্রশাসন ও অর্থ) ফয়সাল মাহমুদ, আরএমপি’র অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (অ্যাডমিনিস্ট্রেশন অ্যান্ড ফিন্যান্স) মো. রশীদুল হাসান, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের ক্যারিয়ার প্ল্যানিং ও প্রশিক্ষণ অনুবিভাগের উপসচিব খালিদ মেহেদী হাসান।

আলোচনা সভায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন, রুয়েটের ফ্যাকাল্টি অব ইলেকট্রিকাল অ্যান্ড কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার বিভাগের ডিন প্রফেসর ড. রবিউল ইসলাম। আলোচক ছিলেন, রাজশাহী কলেজ সমাজবিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. আব্দুল মালেক সরকার।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার ড. দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ূন কবীর বলেন, প্রযুক্তি-বান্ধব নানা উদ্ভাবনের মাধ্যমে নাগরিক জীবনকে আরও সহজ, সমৃদ্ধ এবং স্মার্ট করে গড়ে তুলতে এবং দেশের উদ্ভাবকদের উদ্ভাবনী সক্ষমতা দেশের প্রয়োজনে কাজে লাগাতে এই মেলার আয়োজন করা হয়েছে। স্মার্ট নাগরিক তৈরির প্রয়াসে নির্মিত ‘ভূমির পাঠশালা’ উদ্ভাবনী উদ্যোগসহ পাঁচবিবি মডেল, খাসপুকুর ডাটাবেজ, অনলাইন হাটবাজার ইজারা ব্যবস্থাপনা, আরএমপির ডিজিটাল ফরেন্সি ল্যাব, হ্যালো মেসন প্যাভিলিয়নের মাধ্যমে মোট ২২টি স্টল নিয়ে উদ্ভাবনী এই মেলা চলবে।

বিভাগীয় কমিশনার আরও বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশের টেকসই লক্ষ্যমাত্রা অর্জন এবং ২০৪১ সালের মধ্যে স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে তোলার লক্ষ্যে সরকার বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। সেই লক্ষ্যে প্রযুক্তি দক্ষতা বৃদ্ধি, উদ্ভাবন এবং প্রযুক্তির সাথে মানুষের মেলবন্ধন তৈরিতে কাজ করছে সরকার।

Paris