ঢাকাসোমবার , ১৩ জুন ২০২২

প্রাথমিকে নিয়োগ: দ্বিতীয় ধাপে কাগজ জমার সময় বাড়তে পারে

জুন ১৩, ২০২২ ১১:১৭ পূর্বাহ্ণ । ১৫৪ জন

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগে লিখিত পরীক্ষার দ্বিতীয় ধাপের ফল প্রকাশ হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার (৯ জুন) রাতে এ ফল প্রকাশ করে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর (ডিপিই)। এ ধাপে উত্তীর্ণ প্রার্থীদের আগামী ১৮ জুনের মধ্যে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তবে এ সময় আরও বাড়ানোর চিন্তা করছে ডিপিই।

সম্প্রতি ডিপিই’র এক নির্দেশনায় বলা হয়েছে, দ্বিতীয় ধাপে মনোনীত প্রাার্থীদের অনলাইনে আবেদনের আপলোড করা ছবি, আবেদনের কপি, লিখিত পরীক্ষার প্রবেশপত্র, নাগরিকত্ব ও স্থায়ী ঠিকানার স্বপক্ষে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান/পৌরসভা/সিটি করপোরেশনের ওয়ার্ড কাউন্সিলরের সনদপত্র, জাতীয় পরিচয়পত্র এবং শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদসহ পোষ্য সনদ (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে) ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র কমপক্ষে ৯ম গ্রেডের গেজেটেড কর্মকর্তার মাধ্যমে সত্যায়িত করে জমা দিতে হবে।

আরও বলা হয়েছে, এসব প্রয়োজনীয় কাগজপত্র আগামী ১৮ জুনের মধ্যে স্ব স্ব জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে আবশ্যিকভাবে জমা দিয়ে প্রাপ্তি স্বীকারপত্র সংগ্রহ করতে হবে।মৌখিক পরীক্ষার তারিখ ডিপিই’র ওয়েবসাইটে www.dpe.gov.bd প্রকাশ করা হবে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ডিপিই মহাপরিচালক আলমগীর মুহম্মদ মনসুরুল আলম রোববার জাগো নিউজকে বলেন, নিয়োগ সংক্রান্ত কাজের জন্য মাঠ পর্যায়ের সব অফিস শুক্র-শনিবার খোলা রাখা হচ্ছে। দ্বিতীয় ধাপে লিখিত পাস করা প্রার্থীদের কাছে আগামী ১৮ জুনের মধ্যে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র চাওয়া হয়েছে। এদিন ছুটির দিন হলেও সংশ্লিষ্ট সব অফিস খোলা রাখতে বলা হয়েছে। বন্ধের দিনেও প্রার্থীরা কাগজপত্র জমা দিতে পারবেন।

তিনি বলেন, বর্তমানে শিক্ষক নিয়োগের প্রথম ধাপের মৌখিক পরীক্ষা শুরু হয়েছে। দ্বিতীয় ধাপের এ পরীক্ষা শুরু করতে আরও কিছুটা দেরি হতে পারে। দেশের বিভিন্ন স্থানে নির্বাচন কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এসব নির্বাচনে শিক্ষক-কর্মকর্তাদের দায়িত্ব পালন করতে হয়। সে কারণে দ্বিতীয় ধাপের মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দেওয়ার সময় আরও বাড়ানো হতে পারে। এ বিষয়ে দেশের জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক হয়েছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে এ সংক্রান্ত নির্দেশনা জারি করা হবে।

দ্বিতীয় দফায় লিখিত পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে ২৯ জেলার মোট ৫৩ হাজার ৫৯৫ জন প্রার্থীকে মৌখিক পরীক্ষার জন্য নির্বাচিত করা হয়। এ ফলাফলের ভিত্তিতে নির্বাচিত প্রার্থীরা কেবল মৌখিক পরীক্ষায় অংশ নিতে পারবেন।

প্রাথমিকের দ্বিতীয় ধাপের লিখিত পরীক্ষা গত ২০ মে ২৯ জেলায় অনুষ্ঠিত হয়। এতে মোট পরীক্ষার্থী ছিলেন চার লাখ ৬৬ হাজার ১০০ জন। আর তৃতীয় ও শেষ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয় গত ৩ জুন। এ ধাপে মোট পরীক্ষার্থী ছিলেন চার লাখ ৪৬ হাজার ৫৯৮ জন।

এদিকে প্রাথমিকের প্রথম ধাপের লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন ৪০ হাজার ৮৬২ জন। প্রথম ধাপের পরীক্ষার ২০ দিনের মাথায় এ ফল প্রকাশ করা হয়েছিল। প্রথম ধাপের লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের মৌখিক পরীক্ষা ১২ জুন থেকে শুরু হয়েছে।- জাগোজবস