ঢাকাসোমবার , ৩ এপ্রিল ২০২৩
  • অন্যান্য

টেস্ট রোমাঞ্চে ফিরছে আয়ারল্যান্ড

এপ্রিল ৩, ২০২৩ ২:৫৬ অপরাহ্ণ । ৭৫ জন

অ্যান্ড্রু বলবার্নি সর্বশেষ প্রথম শ্রেণির ম্যাচ খেলেছেন ২০২১ সালের এপ্রিলে, কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশিপে গ্ল্যামরগানের হয়ে নর্দাম্পটনশায়ারের বিপক্ষে। আগামীকাল আয়ারল্যান্ডের হয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে একমাত্র টেস্টে টস করতে নামবেন সেই বলবার্নিই। অর্থটা তো পরিষ্কারই, শুধু টেস্ট ক্রিকেট নয়, দীর্ঘ সংস্করণের ক্রিকেট থেকেই অনেক দূরে চলে গিয়েছিল আয়ারল্যান্ড।

২০১৮ সালের মে মাসে পাকিস্তানের বিপক্ষে নিজেদের প্রথম টেস্ট খেলার পর ২০১৯ সালের মার্চে আফগানিস্তানের বিপক্ষে দেরাদুনে আরেকটি টেস্ট খেলে আইরিশরা। সে বছরেরই জুলাইয়ে লর্ডসে টেস্ট খেলে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে। এর পর থেকে টেস্টে একরকম স্বেচ্ছা নির্বাসনেই চলে গেছে দলটি। বাংলাদেশ সফরে আগামীকাল শুরু হতে যাওয়া মিরপুরের একমাত্র টেস্টটি তাই আয়ারল্যান্ডের জন্য লাল বলের ক্রিকেটে ফেরার দিনই।

১৫ জনের দলে সবচেয়ে বেশি আটটি টেস্ট খেলেছেন পিটার মুর। এ উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান অবশ্য ম্যাচগুলো খেলেছেন জিম্বাবুয়ের হয়ে। মুরের পর আয়ারল্যান্ডের এই দলে সবচেয়ে বেশি টেস্ট খেলার অভিজ্ঞতা বলবার্নিরই। দলের হয়ে আগের তিনটি টেস্টেই খেলেছেন তিনি। বাংলাদেশ সফরের দলে টেস্ট খেলার অভিজ্ঞতা আছে আর মাত্র চারজনের। কাজেই আগামীকাল দলটার অন্তত পাঁচজনের টেস্ট অভিষেক হচ্ছেই।

সাম্প্রতিক সময়ে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে আইরিশ ক্রিকেটারদের পদচারণ তেমন নেই। দেশটির প্রথম শ্রেণির টুর্নামেন্ট ইন্টার-প্রভিনশিয়াল চ্যাম্পিয়নশিপ সর্বশেষ হয়েছে ২০১৯ সালে। করোনাভাইরাস ও এর পরবর্তী ধাক্কায় টুর্নামেন্টটা আর হয়নি, সাম্প্রতিক সময়ে তাদের মনোযোগ ছিল সীমিত ওভারের ক্রিকেটেই।

আবারও টেস্ট খেলতে নেমে রোমাঞ্চিত আয়ারল্যান্ড

এ বছর অবশ্য টেস্টে ব্যস্ত সূচিই কাটাবে আইরিশরা, বাংলাদেশের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে যার শুরু। এরপর শ্রীলঙ্কা সফরে দুটি টেস্ট ম্যাচ খেলবে তারা। জুনে লর্ডসে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে চার দিনের একটি টেস্টও আছে। টেস্টের প্রস্তুতি নিতেই বাংলাদেশের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজে শেষ মুহূর্তে গিয়ে বিশ্রাম দেওয়া হয় অধিনায়ক বলবার্নিকে।

তবে তিন টেস্ট খেলা আরেক ‘অভিজ্ঞ’ পল স্টার্লিংকে টেস্টে পাচ্ছে না আয়ারল্যান্ড। আগামী ওয়ানডে বিশ্বকাপকে সামনে রেখে তাঁকে বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কা সফরে টেস্ট খেলানো হচ্ছে না। ওয়ারউইকশায়ারের হয়ে খেলবেন বলে ইংল্যান্ডের বিপক্ষেও টেস্ট খেলবেন না তিনি। টি-টোয়েন্টি সিরিজ শেষে তাঁর ব্যাপারে দলের পেসার মার্ক এডেয়ার বলেছিলেন, ‘আমরা তাকে সব সময়ই মিস করব। যখনই সে দলে থাকে, আমরা আনন্দিত হই।’

চার বছর পর টেস্টে ফেরা, স্বাভাবিকভাবেই মিরপুর টেস্টের আগে রোমাঞ্চিত আইরিশরা। সিলেটে ওয়ানডে সিরিজের সময়ে ব্যাটসম্যান হ্যারি টেক্টর বলছিলেন, ‘আমি রোমাঞ্চিত, এটা আমার জন্য স্বপ্নপূরণের মতো ব্যাপার। যখন ছোট ছিলাম আয়ারল্যান্ড তো (টেস্ট) খেলত না। আশা করি খেলার সুযোগ পাব।’

প্রথম আলো